রায়পুর, কালিয়াগঞ্জ, উত্তর দিনাজপুর:

সমস্ত মানুষ এই পৃথিবীকে গাড়ি , বিদুৎশক্তি ,গগনচুম্বী অট্টালিকা, বড় বড় রাস্তা,ব্যবসা – প্রতিষ্ঠান , ইত্যাদির দ্বারা সাজাতে ব্যস্ত । তাদের কাছে জড় জগতের এগুলি অত্যন্ত সুন্দর বলে মনে হয়। কিন্তু প্ৰকৃতপক্ষে , এই জড় জগতে সুখ নেই । মানুষেরা কেবল দুঃখের নিবৃত্তি – সাধনের চেষ্টা করছে । এবং এই দুঃখ নিবৃত্তির জন্য মানুষ পরম পুরুষোত্তম ভগবান শ্রীকৃষ্ণ কে ভুলে এই মায়ার দুঃখ ভোগ করছেন-

কৃষ্ণ ভুলি যে জীব অনাদি বহির্মুখ

 অতএব মায়া তারে দেয় সংসার দুখ।

এই দুঃখ থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য, দুঃখ থেকে পরিত্রাণের মার্গ দেখানোর জন্য ২৬ শে নভেম্বর ২০১৯ তারিখে উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ থানার রায়পুর নামহট্ট সংঘের এক শ্রদ্ধাকুটির প্রাঙ্গনে ভজন কীর্তন সহযোগে মধ্যাহ্নকালীন সময়ে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইসকন মায়াপুরের নামহট্ট বিভাগের অন্যতম জেলা পরিদর্শক তথা উত্তর দিনাজপুর জেলার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রচারক পূজ্যপাদ নন্দগোপ কুমার দাস ব্রহ্মচারী প্রভু এবং তার সহকারী বৃন্দ। ভজন কীর্তন এরপর পূজ্যপাদ নন্দ গোপ প্রভু উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ১৫০ জন ভক্তের উদ্দেশ্যে শ্রীল প্রভুপাদ রচিত শ্রীমদ্ভাগবত গীতা থেকে হরিকথা পাঠ প্রদান করেন। এরপর শুরু হয় মধ্যাহ্নকালীন আরতী কীর্তন। আরতির পর অনুষ্ঠানে উপস্থিত সমস্ত ভক্তের উদ্দেশ্যে মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হয়।

অন্যদিকে উত্তর দিনাজপুর কালিয়াগঞ্জ থানায় রায়পুরে এক শ্রদ্ধাকুটির প্রাঙ্গনে প্রায় ৭০ জন ভক্তসঙ্গে  সন্ধ্যাকালীন অনুষ্ঠান পরিবেশন হয়। সন্ধ্যা ৫.৩০ ঘটিকায় বৈষ্ণব মহাজন বিরচিত ভজন কীর্তনের মধ্য দিয়ে এই স্থান ভরে ওঠে। এরপর শুরু হয় সন্ধ্যা আরতি কীর্তন। আরতির পর এই স্থানে পুজ্যপাদ নন্দ গোপ প্রভু উপস্থিত সকল ভক্তদের উদ্দেশ্যে শ্রীল প্রভুপাদের রচিত ভাগবত কথা প্রবচন প্রদান করেন। প্রভুর পাঠ প্রদানের পর এই শ্রদ্ধাকুটির প্রাঙ্গনে সমস্থ ভক্তদের উদ্দেশ্যে মহাপ্রসাদ বিতরন করা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here